আসানসোল মহিলা উদ্যোগের প্রয়াসে রামকৃষ্ণ মিশনে অনুষ্ঠিত হলো গুণীজন সম্বর্ধনা

বেঙ্গল মিরর, আসানসোল, ১০ ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০,  সৌরদীপ্ত সেনগুপ্ত : বহু বছর ধরে পশ্চিম বর্ধমানের শিল্প শহর আসানসোল কে আলোকময় করেছেন বহু গুণীজন বিশ্বের দরবারে। আর এরই রেশ ধরে গত ৮ ই ফেব্রুয়ারি শনিবার বর্তমান কালের প্রবীণ স্বনামধন্য গুণীজনদের নিয়ে আসানসোল রামকৃষ্ণ মিশনের অডিটোরিয়ামে একটি বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সম্বর্ধনা দিলেন  আসানসোলের একটি সম্পূর্ণ মহিলা পরিচালিত স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা “আসানসোলে মহিলা উদ্যোগ”।

riju advt

  গত শুক্রবার এই মর্মে একটি  সাংবাদিক বৈঠক করে সংস্থার প্রেসিডেন্ট শ্রীমতী সুদেষ্ণা ঘটক বলেন, তাদের সংস্থা এই বছর প্রথম এই অভিনব সম্বর্ধনা জ্ঞাপন অনুষ্ঠান আসানসোল , রানীগঞ্জ এলাকার মানুষজনের মধ্যে থেকে গুণীজনদের বেছে নিলেও আগামীদিনে আরো বিস্তৃত পরিধির মধ্যে থেকে গুণী মানুষজনকে সম্বর্ধনা দেবেন। শিল্পী, সাহিত্যিক, গায়ক,  খেলোয়াড়, ডাক্তার, আইনজীবী , নাট্যকার ও বিভিন্ন পরিধির মধ্যে থেকে তারা কিছু মানুষকে বেছে নিয়েছেন।

তিনি বলেন তাদের এই মহিলা  পরিচালিত স্বেচ্ছাসেবী সংস্থায় আপাতত: ২২ জন সদস্যা রয়েছেন। শুক্রবারের সাংবাদিক বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন সংস্থার ভাইস প্রেসিডেন্ট মৈত্রেয়ী গাঙ্গুলী, সেক্রেটারি সুবর্ণা রায়, এসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি প্রতিমা লায়েক, ট্রেজারার সুদীপ্তা তলাপাত্র, ওয়াকিং সেক্রেটারি তাপসী মৈত্র , রীনা সেনগুপ্ত, দুই কনিষ্ঠ সদস্যা মধুমিতা সেনগুপ্ত ও তিলোত্তমা মুখার্জী প্রমুখ।

     শনিবার যথারীতি দুপুর ২ টোর সময় রামকৃষ্ণ মিশনের হলে প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সূচনা করেন আসানসোল রামকৃষ্ণ মিশনের সেক্রেটারি স্বামী  
সোমাত্মানন্দজী  মহারাজ। সঙ্গে ছিলেন আসানসোল করপোরেশনের চেয়ারম্যান শ্রী অমর চ্যাটার্জী, কাউন্সিলর শ্রাবণী মন্ডল, আসানসোল মহিলা উদ্যোগের প্রেসিডেন্ট সুদেষ্ণা ঘটক, সেক্রেটারি সুবর্ণা রায় সহ সমস্ত  সদস্যাগণ। পরে উপস্থিত হন আসানসোল দক্ষিণ বিধায়ক এবং এ ডি ডি  এ চেয়ারম্যান শ্রী তাপস ব্যানার্জী, আসানসোলে করপোরেশনের ডেপুটি মেয়র শ্রীমতি তাবাসসুম আরা এবং মেয়র পারিষদ অভিজিৎ ঘটক ।

   অনুষ্ঠানের শুরুতেই স্বামী সোমাত্মানন্দজী মহারাজ মহিলাদের সমাজের গুণীজনদের এই উদ্যোগের প্রশংসা করে বলেন,” আকাশে যেমন অনেক তারাদের মধ্য ধ্রুবতারা একটা বিশেষ স্থানে থাকে সেরকমই সমাজে গুণীজন তারাই হন যারা নিজ নিজ ক্ষেত্রে সুনাম অর্জন করার সঙ্গে সঙ্গে আরো মানুষকে তাদের কর্মকাণ্ডে সামিল করেন।”
  এরপর সংস্থার প্রেসিডেন্ট সুদেষ্ণা ঘটক বলেন যে, তারা আরো অনেক গুণী মানুষের খোঁজ পাননি বলে যোগাযোগ করে উঠতে পারেনি এবং পরবর্তী সময়ে তারা নিশ্চই সেইসব মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করবেন। এছাড়া তাদের সংস্থা যে সমস্ত সমাজ সেবার কাজ করে থাকেন যেমন দুঃস্থদের কম্বল বিতরণ থেকে ব্লাইন্ড স্কুলের বাচ্চাদের সহযোগিতা প্রভৃতি সমাজসেবামূলক কাজের কিছু উদহারন তুলে ধরেন।
    এদিন এই অনুষ্ঠানে শিল্পী, সাহিত্যিক, চিকিৎসক, আইনজীবী, চিত্রশিল্পী, গায়ক  প্রভৃতি সমাজের বিভিন্ন স্তরের  মানুষকে সম্বর্ধনা দিয়ে সম্মান জ্ঞাপন করা হয় ।
যাদেরকে সম্মান জানানো হয় তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলেন বিখ্যাত শিল্পী ও চিত্রকর শ্রী সত্যেন গঙ্গোপাধ্যায়, বিশিষ্ট চিকিৎসক ড: প্রতিভা রঞ্জন মুখার্জী, চিকিৎসক ড: কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়, চিকিৎসক ড: প্রদীপ কুমার ব্যানার্জী, চিকিৎসক ড: শ্রীমতি শাশ্বতী চ্যাটার্জী, বিশিষ্ট কবি ও গীতিকার শ্রীমতি মুক্তি রায়চৌধুরী, সাহিত্যিক শান্তিময় বন্দ্যোপাধ্যায়, সাহিত্যিক অমল বন্দ্যোপাধ্যায়, সাহিত্যিক প্রণতি বন্দ্যোপাধ্যায়, মূর্তি শিল্পী সুশান্ত রায়,  আলোকশিল্পী বাবলু ভট্টাচার্য,  বিশিষ্ট আইনজীবী শেখর কুন্ডু, বিশিষ্ট আইনজীবী অমিতাভ মুখোপাধ্যায়, বিশিষ্ট আইনজীবী বিকাশ চ্যাটার্জী, অবসরপ্রাপ্ত কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি জিমুৎবাহন গুপ্ত, চিকিৎসক ড: বি কে সাহা, সাংবাদিক ও চিত্রশিল্পী দেবব্রত ঘোষ , চিত্রশিল্পী প্রিয়দর্শী বসু প্রমুখ । সর্বমোট ৫০ জনকে সম্বর্ধনা দেওয়া হয়।
  অনুষ্ঠান সম্পাতি সঙ্গীতের মাধ্যমে শেষ হয়। আসানসোলের গুণীজনকে সম্বর্ধনা জ্ঞাপনের ক্ষেত্রে আসানসোল মহিলা উদ্যোগের ভূমিকা অবশ্যই শিল্প শহর তথা পশ্চিম বর্ধমান জেলার সাংস্কৃতিক মানচিত্রে এক নতুন দিশা দেখাবে এটাই আসা করা যায়।