রাজ্যে প্রথম মিশন নির্মল বাংলা অভিযান ও স্মার্ট লাইটিং ম্যানেজম্যান্ট সিস্টেম / আসানসোল পুরনিগমের তিন বরোতে বাড়ি বাড়ি থেকে জঞ্জাল তোলার কাজ শুরু

বেঙ্গল মিরর, আসানসোলঃ রাজ্যে প্রথম স্মাট লাইটিং ম্যানেজম্যান্ট সিস্টেম ও সলিড ওয়েস্ট ম্যানেজম্যান্টে মিশন নির্মল বাংলা অভিযানে বাড়ি  বাড়ি  থেকে জঞ্জাল বা আর্বজনা তোলার কাজ শুরু হলো আসানসোল পুরনিগম এলাকায়। সোমবার আসানসোলের রবীন্দ্র ভবনে এক অনুষ্ঠানে এই দুই প্রকল্পের উদ্বোধন করা হয়। উপস্থিত ছিলেন আসানসোল পুরনিগমের মেয়র জিতেন্দ্র তেওয়ারি, পশ্চিম বর্ধমান জেলার জেলাশাসক শশাঙ্ক শেঠি, দূর্গাপুর পুরনিগমের মেয়র দিলীপ অগস্থি, আসানসোল দূর্গাপুর উন্নয়ন পর্ষদ বা আড্ডার চেয়ারম্যান তাপস বন্দোপাধ্যায় পুর কমিশনার খুরশিদ আলি কাদরি। 

riju advt

অনুষ্ঠানে মেয়র বলেন, গত সাড়ে চার বছরে কাউন্সিলার, আধিকারিক ও ইঞ্জিনিয়ারদের সহযোগিতায় পুরনিগমের বর্তমান বোর্ড পুর এলাকায় উন্নয়নের কাজ করেছে। ক্ষমতায় থাকা দলের পাশাপাশি বিরোধী দলের কাউন্সিলাররা বোর্ডকে যা সহযোগিতা করেছে, তা গোটা দেশের কাছে একটা উদাহরণ। গণতন্ত্র কিভাবে রক্ষা করা  যায়, তার উদাহরণ আসানসোল পুরনিগম যা দেখিয়েছে, তা অন্যদের দেখে শেখা উচিত। জেলা প্রশাসনের কাছ থেকেও বিভিন্ন কাজে ভালো সহযোগিতা পাওয়া গেছে। তিনি আরো বলেন, শহর পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখার জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের নির্দেশে বিভিন্ন কাজ করা হচ্ছে। রাজ্য সরকার এই ব্যাপারে আশ্বস্ত করে যে, কোন কাজের জন্য টাকার অভাব হবেনা। মিশন নির্মল বাংলা প্রকল্পে ২০০ টাকা দামের দুটো ডাস্টবিন  পুরবাসীদের মাত্র ৩০ টাকায় দেওয়া হবে ।

যাতে তারা জৈবিক ও অজৈবিক আবর্জনা বা জঞ্জাল তারা বলে দেওয়া আলাদা  আলাদা ডাস্টবিনে রাখতে পারেন। আপাততঃ পুরনিগমের ৪, ৫ ও ৬ নং বরো এলাকায় এই প্রকল্প শুরু করা হচ্ছে। দ্রুত তা পুরনিগমের ১০টি বরো এলাকাতেই চালু করা হবে। ডেপুটি মেয়র তবস্সুম আরার নেতৃত্বে লাইটের কাজ, মেয়র পারিষদ পূর্ণ শশী রায়ের নেতৃত্বে জল ও লক্ষণ ঠাকুরের নেতৃত্বে স্যানিটেশন বিভাগের কাজ চলছে। এই অনুষ্ঠানে মেয়র সহ অন্যান্যরা জল প্রকল্প ও স্মার্ট লাইটিং সিস্টেমে যুক্ত কর্মীদের সম্মান জানান।