আর এস এস সর্বভারতীয় প্রধান মোহন ভাগবত এর আসানসোল কার্যালয় পরিদর্শন এবং গুরুত্বপূর্ণ সাংগঠনিক বৈঠক

বেঙ্গল মিরর, আসানসোল, ২৫ শে ফেব্রুয়ারি,২০২০ , সৌরদীপ্ত সেনগুপ্ত : গতকাল পশ্চিম বর্ধমানের আসানসোলে এসে  গুরুত্বপূর্ণ সাংগঠনিক বৈঠক করে গেলেন রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবক সঙ্ঘের ( আর. এস .এস) সর্বভারতীয় প্রধান মোহন ভাগবত। কেন্দ্রীয় জেড প্লাস নিরাপত্তা প্রাপ্ত হিন্দুত্ববাদী এই শীর্ষ সংগঠক আসার খবরটি প্রথম থেকেই গোপনীয়তার আড়ালে ছিল। পরে দুপুর আড়াইটে নাগাদ ঝাড়খণ্ডের গিরীডি, দেওঘর হয়ে কড়া নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যে তিনি আসানসোল জাতীয় সড়ক এন এইচ ২ এর ধারে ধাদকাতে  আরএসএস দপ্তরে আসেন।

riju advt

খবর পেতেই আশপাশের মানুষ এবং সাংবাদিকরা ভিড় জমান দপ্তরের বাইরে। প্রায় ঘন্টা দুয়েক তাদের বৈঠক চলে।  সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে সংগঠনকে মজবুত করার লক্ষ্যেই ছিল এই বৈঠক। বৈঠকে ঝাড়খণ্ডের এবং পশ্চিমবঙ্গের প্রান্ত প্রচারকরা উপস্থিত ছিলেন। বিশ্বস্ত সূত্র অনুযায়ী কেন্দ্রীয় এই নেতা আসানসোলের দপ্তরের মধ্যেই দুপুরের ভোজন সারেন।  আর এস এস কর্মীরাই বাড়ির তৈরী পছন্দসই খাবার পরিবেশন করেন। এর আগে চিনি ছাড়া চা দেওয়া হয় তাকে। তার দুপুরের খাবারের তালিকার মধ্যে ছিল সুজির উপমা, চিনি ছাড়া গাজরের হালুয়া এবং ভেজ স্যুপ। ফুড টেস্টাররা আগে থেকেই সেখানে উপস্থিত ছিলেন এবং খাবার টেস্টিং করার পর সেই খাবার দেওয়া হয়। প্রায় ঘণ্টাখানেক প্রান্ত প্রচারকদের নিয়ে বৈঠক করার পর অন্যান্য সদস্যদের নিয়েও দেখা করেন তিনি।

 বৈঠক চলাকালীন পুরো দপ্তর ঘিরে রাখেন কেন্দ্রীয় সি আই এস এফ কমান্ডোরা। সঙ্গে আসানসোল দুর্গাপুর পুলিশের উচ্চপদস্থ আধিকারিকরাও ছিলেন। জায়গাটি আসানসোল নর্থ থানার খুব কাছে অবস্থিত বলে নর্থ থানার ভারপ্রাপ্ত আধিকারিক শ্রী শান্তনু অধিকারকে দেখতে পাওয়া যায় নিরাপত্তা বলয়ের কাছেই।
    সবার সঙ্গে সাক্ষাৎ করার পর বাইরে আসতেই সাংবাদিকরা প্রশ্ন করেন এবং তার কাছ থেকে সি এ এ এবং এন আর সি সম্পর্কে তার অভিমত জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেন নি। এরপর তিনি কড়া নিরাপত্তার মধ্যেই আসানসোলের কাছে অন্ডাল বিমানবন্দরের উদ্দ্যেশে রওনা হন। তার কনভয়ে বিমানবন্দর পর্যন্ত সংগঠনের গুরুত্বপূর্ণ কিছু প্রচারক তার সঙ্গে অন্ডাল বিমানবন্দর পর্যন্ত যান।
  ওয়াকিবহাল মহলের কথা অনুযায়ী মোহন ভাগবতের  এই ঝটিকা সফর এবং বৈঠক  গুরুত্বপূর্ণ সাংগঠনিক পদক্ষেপ  হিসেবেই দেখা হচ্ছে কারণ রাজ্যের সাথে আসানসোলেও পুরভোট খুব শ্রীঘ্রই আসন্ন সঙ্গে এন আর সি বিরোধী আন্দোলনের মাত্রাও তুঙ্গে। আর এসবের মধ্যে এই আর এস এস সুপ্রিমোর সফর কর্মীদের মনোবল কে বাড়তি অক্সিজেন দেওয়ার কারণেই সংগঠিত করা হয়েছে এটাই মনে করা হচ্ছে।