পূর্ব বর্ধমানের মেমারী অঞ্চলে লকডাউনের মধ্যেই রেশন দুর্নীতি নিয়ে অভিযোগ উঠল রেশন ডিলারের বিরুদ্ধে

বেঙ্গল মিরর, পূর্ব বর্ধমান,সৌরদীপ্ত সেনগুপ্ত
লক ডাউন পরিস্থিতিতে রাজ্যে রেশন ও গনবন্টন ব্যবস্থা বেশ বিতর্কিত অবস্থায় রয়েছে। কারণ রেশন নিয়ে বেশ কয়েকদিন ধরেই রাজ্যের বিভিন্ন জায়গা থেকে নানা ধরনের অভিযোগ আসছে | রাজ্যের খাদ্য ও গণবণ্টন দফতরের কাজের ব্যাপারে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় | দফতরের সচিব বদল করা হয়েছে | তবুও কারচুপির অভিযোগ আসা বন্ধ হয়নি | তা পুনরায় চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল মেমারি থানার অন্তর্গত বড়র গ্রামের এক রেশন দোকানে |

riju advt

  স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পূর্ব বর্ধমানের দুর্গাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের অধীনস্থ বড়র গ্রামের রেশন ডিলার আলাউদ্দিন মল্লিক গ্রাহকদের রেশন পরিমানে কম দিচ্ছিলেন | এর ফলে গ্রামের মানুষ বিক্ষোভে ফেটে পড়ে  |
 এর আগেও ওই রেশন ডিলার আলাউদ্দিন মল্লিকের বিরুদ্ধে রেশনের আটা পাচারের অভিযোগে  অভিযুক্ত হয়েছে | গ্রামের মানুষ লিখিত ভাবে প্রশাসনের নিকট ওই রেশন ডিলারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করলেও কোন এক অদৃশ্য কারণে তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়নি বলে অভিযোগ করছে গ্রামের মানুষ |
দুর্নীতির একাধিক অভিযোগ করেছে এলাকার মানুষ | প্রতিবাদ করেও কোনও সুরাহা হয়নি বলেই অভিযোগ তাঁদের|
 গ্রামের মানুষের কথায় “লকডাউনের জেরে মানুষের এখন খুব দুর্দিন চলছে | সরকার রেশনের মাধ্যমে কিছু চাল দিয়ে সহায়তা করার চেষ্টা করছে | কিন্তু রেশন ডিলার সেখান থেকে মালপত্র কেটে নিচ্ছে  | তাই বাধ্য হয়ে আমাদের প্রতিবাদ করতে হচ্ছে |
গ্রাহকদের বক্তব্যকে শীলমোহর দিয়েছেন স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্যা মনিকা রায়ও |  তিনি বলেন, ঐ রেশন ডিলার অনেক দিন ধরেই রেশন দ্রব্য ওজনে কম দিচ্ছেন বলে অভি‌যোগ পেয়েছি | 

advt.

  ওই রেশন দোকানের এক গ্রাহক নোকু রায় বলেন, তার চারটি কার্ডে ঠিকঠাক চাল দিলেও  তার মায়ের অন্তর্দায় কার্ডে উপযুক্ত পরিমাণ থেকে দশ কেজি চাল কম দেওয়া হয়েছে | গতকাল দুর্গাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপপ্রধান নিত্যানন্দ ঘোষ  রেশনে কারচুপি হচ্ছে বলে সূত্র মারফত খবর পেয়ে ওই রেশন দোকানে  হানা দেন, এবং তিনি স্বচক্ষে দেখতে পান এক গ্রাহককে আর প্রাপ্য থেকে কম চাল দেওয়া হচ্ছে | তৎক্ষণাৎ তিনি প্রশাসনে বিষয়টি জানালে | ঘটনাস্থলে মেমারি থানার পুলিশ উপস্থিত হয় |  প্রশাসনের সামনে ওই রেশন ডিলার তার কারচুপির কথা স্বীকার করে নেয় |

advt.

এমতাবস্থায় পুলিশ প্রশাসন,  গ্রামের মানুষ ও  পঞ্চায়েতের কর্তা ব্যক্তিরা আলাপ-আলোচনা করে  রেশন ডিলারকে  রেশন সামগ্রী বন্টনের কথা বলেন | 
 নিত্যানন্দ বাবুর কথায়,  এই মুহূর্তে  রেশন ডিলারকে রেশন বন্টনের কথা বলা হয়েছে | না হলে এই দুর্দিনে গ্রামের সাধারণ মানুষের  রেশন পেতে অসুবিধা হবে | তাই  রেশন দ্রব্যাদি বন্টন হয়ে যাবার পর প্রশাসনের পক্ষ থেকে ওই রেশন ডিলারের বিরুদ্ধে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে তিনি জানান |
 গতকাল মেমারি ১ নম্বর ব্লকের খাদ্য দপ্তরের অধিকর্তারা অভিযোগ পেয়ে ওই রেশন  দোকান পরিদর্শনে আসেন | তারা ওই অভিযুক্ত  রেশন ডিলার এবং গ্রামের মানুষের সঙ্গে কথা বলেন |
এ ব্যাপারে খাদ্য সুরক্ষা গণবণ্টন দপ্তর এর অধিকর্তা কমলকুমার সরকারকে  প্রশ্ন করা হলে,  তিনি বলেন, অভিযোগ  সত্য |  তবে এই দুঃসময় মুহূর্তে, ওই রেশন ডিলারকে  রেশন বন্টনের কথা বলা হয়েছে | দুঃসময় কেটে গেলে ওই রেশন ডিলার প্রকৃত দোষী সাব্যস্ত হলে, তার বিরুদ্ধে আইনানুগ উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও তিনি জানান ||