করোনা পরিস্থিতিতে আসানসোল মাড়োয়ারি যুব মোর্চার তিন মাস ব্যাপী বিশেষ সমাজসেবামূলক কর্মসূচির সাময়িক পরিসমাপ্তি ঘটলো মন্ত্রী মলয় ঘটক এর হাত ধরে

আসানসোল, বেঙ্গল মিরর, ৪ ই জুলাই, সৌরদীপ্ত সেনগুপ্ত: 
করোনা পরিস্থিতিতে বেশ কিছু বিষয় শিথিল করলেও এখনও লকডাউন জারী রয়েছে দেশ জুড়ে। জীবিকা বন্ধ থাকার কারণে আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া মানুষদের সাহায্যার্থে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার  তরফ থেকে বিভিন্ন কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে।

riju advt

শনিবার ৪ ই জুলাই  মারওয়ারী যুব মোর্চার আসানসোল সিটি শাখার সদস্যদের প্রয়াসে যে কর্মসূচি নেওয়া হয়েছিল গত ৩০ শে মার্চ ২০২০ থেকে, সেই কর্মসূচির আপাত: পরিসমাপ্তি ঘটল পশ্চিমবঙ্গের আইন ও শ্রম মন্ত্রী মলয় ঘটকের হাত ধরে। প্রায় ১৫০ জন গরীব মানুষের মধ্যে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। মন্ত্রী নিজে হাতে খাদ্যসামগ্রী তুলে দেন দুঃস্থদের হাতে। উপস্থিত ছিলেন আসানসোল কর্পোরেশনের মেয়র পারিষদ অভিজিৎ ঘটক, ওয়ার্ড কাউন্সিলর উমা শ্রফ। মন্ত্রী মলয় ঘটক আসানসোল মাড়োয়ারি যুব মোর্চার এই উদ্যোগের প্রশংসা করেন এবং ভবিষ্যতে তাদের সবরকম সেবামূলক কাজের পাশে থাকবেন বলে আশ্বাস দেন।

 
এদিকে মাড়োয়ারি যুব মোর্চার প্রেসিডেন্ট সুদীপ আগরওয়াল বলেন এই প্রয়াস কিছুদিনের সাময়িক বিরতি দেওয়া হল। ভবিষ্যতে প্রয়োজন পড়লে আবারো একইরকম কর্মসূচি নেওয়া হবে।
গত তিন মাসে মাড়োয়ারি যুব মোর্চার কর্মসূচির মধ্যে অন্যতম ছিল ৩৪৭৫ জনকে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ, ২৪৯৫ জনকে মাস্ক বিতরণ, আসানসোলে বিভিন্ন প্রান্তে স্যানীটাইজেশন করা, লক ডাউনের মঝে স্থানীয় জেলা হাসপাতাল ব্লাড ব্যাংকে ন্যানো রক্ত দান শিবির করে রক্তদান করা, সাফাই কর্মীদের সম্মানিত করা,  ছাড়াও আরো অন্যান্য কর্মসূচি।

এই  কর্মসূচি চলার  ছিলেন “আসানসোল মাড়োয়ারি যুব মোর্চা”- র আসানসোল শাখার প্রেসিডেন্ট সুদীপ আগরওয়াল ছাড়াও ছিলেন পূর্ব প্রান্তীয় কোষাধক্ষ্য আনন্দ পারিক, কোষাধ্যক্ষ নবীন আগরওয়াল, উপাধ্যক্ষ প্রদীপ আগারওয়াল, সংযুক্ত সচিব অঙ্কিত আগরওয়াল, চন্দন আগরওয়াল, সন্দীপ দারুকা, রওনক আগরওয়াল, মুকেশ শর্মা, জিতু সিং, বিমল জালান, বিমল আগরওয়াল, সুভাষ পারিক, উপস্থিত ছিলেন। 
  
করোনা ভাইরাসকে মোকাবিলা করতে  আসানসোল মারওয়াড়ি যুব মোর্চার  প্রয়াস যে সামাজিক দায়িত্ববোধকে আগামী প্রজন্মের কাছে দৃষ্টান্ত হিসেবে তুলে ধরবে তা বলার অপেক্ষা রাখেনা।