করোনা পরিস্থিতিতে আসানসোল বাজারের সব্জি মণ্ডী স্থানান্তরিত ইস্টার্ন রেলওয়ে স্কুলের মাঠে; পুলিশ কমিশনারের আবেদনে রেলের আসানসোলের ডি আর এম এর তাৎক্ষণিক পদক্ষেপ

বেঙ্গল মিরর, আসানসোল, ৩১ শে মার্চ,২০২০ ,সৌরদীপ্ত সেনগুপ্ত: করোনা ভাইরাস দমনে প্রধানমন্ত্রীর ভাষণের পরই দেশ জুড়ে ২১ দিনের লকডাউন জারী রয়েছে। পশ্চিম বর্ধমান জেলার আসানসোলে প্রশাসন রীতিমত সতর্ক রয়েছে। এদিকে কয়েকদিন ধরে খবর ছিল আসানসোল বড় বাজারের সবজি মার্কেটে ভীষণ ভিড় হবার কারণে সামাজিক দূরত্ব বা “সোশ্যাল ডিসটান্সিং” ঠিকভাবে মেনে চলা সম্ভব হচ্ছিলনা স্বল্প পরিসর জায়গার কারণে।

riju advt

 আর ঠিক এই কারণে আসানসোল- দুর্গাপুর কমিশনারেটের পুলিশ কমিশনার শ্রী সুকেশ জৈন, আই. পি .এস আবেদন করেন   পূর্ব রেলওয়ের আসানসোল ডিভিশনকে যাতে আসানসোলের বড় বাজারের প্রধান সব্জি মন্ডী কে জি টি রোডের ধারে অবস্থিত পূর্ব রেলওয়ে স্কুলের মাঠে স্থানান্তরিত করা হয় এবং এতে সুরক্ষিত উপায়ে সাধারণ মানুষ বাজার করার “সোশ্যাল ডিসটান্সিং প্রটোকল” মেনে চলতে পারবে।

পুলিশ কমিশনারের থেকে খবর পেয়েই পূর্ব রেলের  আসানসোল ডিভিশনের ডি. আর .এম শ্রী সুমিত সরকার তৎক্ষণাৎ পদক্ষেপ নেন এবং ইস্টার্ন রেল স্কুলের মাঠকে নিখরচায় সামাজিক স্বার্থে সব্জি বাজারকে স্থানান্তরিত করার ক্ষেত্রে সবুজ সংকেত দিয়ে দেন। ফলে আজ থেকেই সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে মানুষ স্কুলের মাঠে শাক সব্জি কিনতে পারবেন। মোট ৯২ জন সব্জি বিক্রেতা তাদের দোকান স্থানান্তরিত করেছেন এবং আজ ভোর পাঁচটা থেকেই তাদের ব্যবসা শুরু করেছেন। স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন এবং আর. পি .এফ  এর আধিকারিকরা মোতায়েন রয়েছেন যাতে সঠিকভাবে লাইন করে এবং “সোশ্যাল ডিসটান্সিং” বজায় রেখে মানুষ বাজার করতে পারেন। রেলের তরফে জানা গেছে  করোনা সংক্রমণ যতদিন না দেশব্যাপী এই আপদকালীন এবং নজিরবিহীন করোনা ভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে ততদিন স্কুলের মাঠে অস্থায়ীভাবে সব্জি বাজার থাকবে।

 স্বভাবতই এটি স্থানীয় প্রশাসনের আবেদনে রেল প্রশাসনের একটি সদর্থক এবং ইতিবাচক সামাজিক পদক্ষেপ। এখন করোনা ভাইরাস মোকাবিলা করে এই পরিস্থিতি থেকে মুক্তি পাওয়া যায় তার দিকে তাকিয়ে সারা দেশের সঙ্গে আসানসোল শহরবাসী।