করোনা আবহে নিয়ম রক্ষার্থে প্রতীকী রথযাত্রা ও পূজার্চনা পালন আসানসোলের ইসকন মন্দিরে

*আসানসোল, বেঙ্গল মিরর,২৩ শে জুন,২০২০, সৌরদীপ্ত সেনগুপ্ত* :
করোনা ভাইরাস মহামারীর জন্য এবছর রথযাত্রার নিয়ম রক্ষার্থে পূজার্চনা চলছে। তাই সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে প্রতীকী রথযাত্রা পালন করল আসানসোলে  ২ নম্বর জাতীয় সড়কের পাশে গারুই গ্রামে অবস্থিত ইসকন মন্দির প্রাঙ্গণে।

riju advt

  অনুষ্ঠানে ভক্তরা উপস্থিত হয়েছিলেন। উল্লেখযোগ্যভাবে উপস্থিত হয়েছিলেন আসানসোল দক্ষিণ বিধায়ক ও এ ডি ডি এ চেয়ারম্যান তাপস ব্যানার্জি, আসানসোল কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান অমর চ্যাটার্জী, করপোরেশনের এম এম আই সি অভিজিৎ ঘটক , এম এম আই সি অনির্বাণ ( অনিমেষ) দাস, কাউন্সিলর শ্রীমতি শ্রাবণী মণ্ডল, প্রাক্তন দুর্গাপুর এসডিএম এবং বর্তমানে  পশ্চিম বর্ধমানে
কোভিড -১৯ এর বিশেষ দায়িত্বপ্রাপ্ত আধিকারিক  শঙ্খ সাঁতরা, ডব্লিউবিসিএস (একজিকিউটিভ), সমাজসেবী ও ফটোগ্রাফিপ্রেমী শ্রীমতি চন্দ্রানী চ্যাটার্জী, পুলক দাস, সমাজসেবী ও ব্যবসায়ী উত্তম মন্ডল প্রমুখ অনেক মানুষ।

  আসানসোল দক্ষিণ বিধায়ক তাপস ব্যানার্জি বলেন, “এবারে করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং সুনির্দিষ্ট নিয়ম কানুন এর মাধ্যমে জগন্নাথ দেব মহাপ্রভু কে মন্দির থেকে নামিয়ে রথে তোলা হয়।এই প্রতীকী রথযাত্রার সুযোগ করে দেওয়ার কারণে আসানসোল ইসকন কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানাই।

” তিনি জগন্নাথ মহাপ্রভু, মহাপ্রভু চৈতন্যদেবকে স্মরণ করে যে সমস্ত ভক্তরা উপস্থিত হয়েছেন তাদেরকেও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন । এই সঙ্গে মহাপ্রভুর কাছে প্রার্থনা করেন যাতে সমস্ত বিশ্ব শান্তিতে থাকে।”

এদিকে করপোরেশনের চেয়ারম্যান অমর চ্যাটার্জি বলেন,” করোনা মহামারীর আবহে এবার রথযাত্রা অনেক  বিধিনিষেধ রয়েছে তাই প্রতীকী ভাবেই রথযাত্রা পালন করা হলো। বিগত অন্যান্য বছর এই মন্দির থেকে আসানসোলের বুধা মাঠ পর্যন্ত রথ টানা হত এবং ৮ দিনব্যাপী মেলাও সংঘটিত হতো।

এ বছর বন্ধ রয়েছে সমস্তকিছু। আগামী বছর মেলা আবার বসবে। আসানসোল ইসকনের ভক্তদের এবং মন্দিরের সমস্ত  ধন্যবাদ জানাই প্রতীকী হলেও এইবারে জগন্নাথ দেব বলরাম ও সুভদ্রার দর্শন করার সুযোগ করে দেওয়ার জন্য।

জগন্নাথ দেবকে দর্শন করতে পেরেই খুশি ভক্তরা। ইসকন মন্দিরের মহারাজ জানান ,”ভক্তদের সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে সামাজিক দূরত্ব, মন্দির স্যানিটাইজেশন সবকিছুর ব্যবস্থা করা হয়েছে।