RANIGANJ-JAMURIA

বিদ্যুৎ নেই, তাই ভোট কর্মীরাও ভোগ করুক যন্ত্রণা, জেনারেটর আটকে বিক্ষোভ

বেঙ্গল মিরর, চরণ মুখার্জী, রানীগঞ্জ :  এলাকায় বিদ্যুৎ নেই, তাই ভোট কর্মীরাও ভোগ করুক আমাদের মত যন্ত্রণা। রবিবার এই দাবি করেই, জামুরিয়া দু’নম্বর ব্লকের তফসি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় জান বাজার আদিবাসী পাড়া এলাকার কয়েকশো মহিলা এবার ভোট কর্মীদের জন্য বিদ্যুতায়নের লক্ষ্যে আনা জেনারেটর নামাতে না দিয়েই ফিরিয়ে দিল ভোটগ্রহণ কেন্দ্র থেকে। রবিবার এমনই ঘটনার প্রেক্ষিতে ব্যাপক উত্তেজনাময় পরিস্থিতি সৃষ্টি হল, তফসির জানবাজার এলাকায় অবস্থিত জানবাজার আদিবাসী অবৈতনিক প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন অংশে। এখানেই রয়েছে ২৪৩ নাম্বার বুথ, আর সেই বুথেই এবার আসানসোল লোকসভা কেন্দ্রের নির্বাচনের আগে ভোট কর্মীরা বুথের মধ্যে পৌঁছানোর সময় তাদের সঙ্গে আসা জেনারেটর আটকে চলে বিক্ষোভ।

এলাকাবাসীদের দাবি প্রায় তিন দশক ধরে এই অংশে বিদ্যুতের খুঁটি এসে পৌঁছলেও পৌঁছয়নি রাজ্য সরকারের বিদ্যুৎ পরিষেবা। পরিবর্তে রয়েছে টিম টিমে আলো দেওয়া, ইসিএলের বিদ্যুৎ সরবরাহের ব্যবস্থা, যা একেবারে বিদ্যুৎ নেই বললেই চলে বলেই দাবি এলাকাবাসীদের, আর সেই বিদ্যুতায়নের জন্য এলাকায় এস্টেট ইলেকট্রিসিটি বোর্ডের বিদ্যুতায়নের বারংবার দাবি করা হলেও কোন ব্যবস্থা গ্রহণ হয়নি বলেই দাবি করেন এলাকার কয়েকশো মহিলা। জানিয়ে এদিন বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পঞ্চায়েতের প্রধান বীণাপাণি বাউরী সামিল হয়ে যান এই বিক্ষোভের মাঝেই তাদের সাথে, তিনি এ বিষয়ে দাবি করেন এই বিক্ষোভকারীদের দাবি যুক্তিসঙ্গত তাই এ বিষয়ে  তিনিও তাদের সাথে সামিল হয়েছেন।

যদিও তিনি তার বক্তব্যে এও দাবি করেন যে এই দুর্ভোগের বিষয় নিয়ে বারংবার বিদ্যুৎ বিভাগে জানানোর পরও কোন কাজের কাজ হয়নি যারই ফল স্বরূপ এরূপ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। এ বিষয়ে স্থানীয় বাসিন্দা তথা পঞ্চায়েত সমিতির কর্মাধ্যক্ষ জগন্নাথের দাবি করেছেন এ বিষয়ে শীঘ্রই নির্বাচনের পরবর্তী সময়ে আলোকপাত করে বিষয়টির সমাধান সূত্র খুঁজে বের করা হবে। তবে এ সকল বিক্ষোভ আন্দোলন হওয়ার কারণে এখনো ওই বুথ টিতে জেনারেটর নিয়ে আসার কোন উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি। যেকোনো রূপ উত্তেজনাময় পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য ঘটনাস্থলে এসে পৌঁছেছে পুলিশ প্রশাসনের সাথেই সেন্টাল ফোর্স।

Leave a Reply