ASANSOL

আসানসোলে শত্রুঘ্ন সিনহার সমর্থনে রোডশো অভিষেক বন্দোপাধ্যায়ের, সাত দফা ভোটে চূর্ণবিচূর্ণ হবে বিজেপি হুঁশিয়ারী

বাবুল সুপ্রিয় প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রীকে  খোঁচা

বেঙ্গল মিরর, আসানসোল,  রাজা বন্দোপাধ্যায় ও সৌরদীপ্ত সেনগুপ্তঃ প্রথম দফার ভোটে মাথা ভাঙা হয়েছে। দ্বিতীয় দফার ভোটে ভেঙেছে ঘাড়। তৃতীয় দফায় মেরুদণ্ড। চতুর্থ দফায় আপনারা ভাঙবেন কোমর। পঞ্চম দফায় ভাঙবে হাত ও কনুই। ষষ্ঠ দফায় ভাঙা যাবে পা ও হাঁটু। আর সবচেয়ে সপ্তম দফার ভোটে ১ জুন ডায়মন্ডহারবারে আমি ভাঙবো সারা শরীর। এই ভাবেই বিজেপি হবে চূর্ণবিচূর্ণ। শুক্রবার বিকেলে আসানসোলের রোডশোর শেষে এইভাবে বিজেপিকে হুঁশিয়ারী দিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক তথা ঘাসফুলের সেকেন্ড ইন কম্যান্ড অভিষেক বন্দোপাধ্যায়।
রোডশো শেষে হটন রোড মোড়ের গাড়ির উপরে সবমিলিয়ে আধঘন্টা বক্তব্যে অভিষেক বন্দোপাধ্যায় নিয়োগ দূর্নীতি, সন্দেশখালি ইস্যু থেকে ২০২২ সালে আসানসোলে উপনির্বাচনে জেতা থেকে এবারের নির্বাচনে বিজেপি প্রার্থী নিয়ে বেশ আক্রমণাত্মক ছিলেন।


তিনি বলেন, ২০১৪ ও ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে আসানসোলের মানুষ বিজেপিকে এখান থেকে জয়ী করেছিলেন। কিন্তু আট বছরে বিজেপি আসানসোলের জন্য কিছুই করেনি। তাই ২০২২ সালে, যখন এখানে উপনির্বাচন হয়েছিল, আসানসোলের মানুষ শত্রুঘ্ন সিনহাকে আশীর্বাদ করেছিলেন। এর পর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দেখানো পথও শত্রুঘ্ন সিনহার চেষ্টায় আসানসোলে গত দুবছরে অনেক উন্নয়ন হয়েছে। এখন আবার নির্বাচনের পালা এসেছে। তাই শত্রুঘ্ন সিনহাকে গতবারের চেয়ে বড় ব্যবধানে জেতাতে হবে। অভিষেক বলেন, একদিকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সমগ্র বাংলার মানুষের সাথে আসানসোলের উন্নয়ন করতে চান। কিন্তু বিজেপি তা করতে দিচ্ছে না।  বাংলার উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ করা তহবিল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। রোডশোর শেষে সভা থেকে তিনি বলেন,  এখন আসানসোলের মানুষদের ঠিক করতে হবে যে তারা বাংলার ১০ কোটি বেশি বসবাসকারী মানুষের উন্নয়নের জন্য যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কাজ করছেন, তাকে সমর্থন করবেন, না বাংলা বিরোধী বিজেপিকে সমর্থন করবেন।

বিজেপি আসানসোল থেকে সুরেন্দ্র সিং আলুওয়ালিয়াকে প্রার্থী করেছে। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, যখন নির্বাচন আস তখন বিজেপি যে কোনো বাঙালিকে রোহিঙ্গা মনে করে। একজন মুসলমানকে পাকিস্তানি বলে।  আর বিজেপির এক নেতা একজন শিখ আইপিএস অফিসারকে খালিস্তানি বলেছেন। আমার প্রশ্ন, এমন একটি দলের প্রতিনিধিকে আসানসোলের মানুষেরা কি বিবেচনা করবেন? অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ, বিজেপির নেতারা শুধুমাত্র নির্বাচনের সময় জনগণের কাছে আসেন। কিন্তু নির্বাচনের পরে দেখা যায় না। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী হওয়ার আগে, নরেন্দ্র মোদি ২০১৪ সালে লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে পোলো গ্রাউন্ডে একটি নির্বাচনী জনসভায় ভাষণ দিয়েছিলেন।

তখন তিনি আসানসোলের লোকদের বলেছিলেন, তারা আসানসোল থেকে বাবুল চাই। আসানসোলের মানুষ তাকে বাবুল দিয়েছিলেন। আজ সেই বাবুল সুপ্রিয় নরেন্দ্র মোদীর হাত ছেড়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে এসেছেন।  কারণ তিনি মোদীর চেয়ে দিদির গ্যারান্টিতে বেশি আস্থা রেখেছেন। তার কটাক্ষ, বিজেপি আসানসোলকে ” ডাম্পিং গ্রাউন্ড মনে করছে। এসএস আলুওয়ালিয়াকে এনে প্রার্থী করলো। যিনি এর আগে পরপর ৫ বছর করে দুবার দার্জিলিং ও বর্ধমান দূর্গাপুর কেন্দ্রে জিতে সাংসদ ছিলেন। কেন তার বারবার কেন্দ্র চেঞ্জ হয়? তিনি যদি কাজ করেন, তাহলে সেখানকার মানুষেরা তাকে আবার চাইবেন। আসল কথা হলো, ঐ দুজায়গায় উনি ৫ মিনিটও সময় দেননি। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপির  বিরুদ্ধে বাংলার পাশাপাশি আসানসোলকে সবদিক থেকে বঞ্চিত করার অভিযোগ করেছেন।

Leave a Reply