ASANSOL-BURNPUR

১৪ ই জুন ওয়ার্ল্ড ব্লাড ডোনার্স ডে উপলক্ষে রক্ত সংকট মেটাতে ন্যানো ক্যাম্পের মাধ্যমে এগিয়ে এল অখিল ভারতীয় মাড়োয়ারি মহিলা সমিতির আসানসোল শাখা

বেঙ্গল মিরর, আসানসোল, ১৫ ই জুন ২০২০, সৌরদীপ্ত সেনগুপ্ত :   বর্তমানে সারা দেশজুড়ে জারি রয়েছে পঞ্চম দফার লকডাউন । লকডাউন ঘোষণার আগে থেকেই করোনা আতঙ্কে রক্তদান শিবিরের পরিমাণ কম ৷ ব্লাডব্যাঙ্ক গুলিতে রক্তের যোগান কম।
   রক্তের এই নজিরবিহীন  আকাল মেটাতে এবার ন্যানো ক্যাম্পের মাধম্যে এগিয়ে এলো অখিল ভারতীয় মাড়োয়ারি মহিলা সম্মেলন এর পশ্চিম বর্ধমানের আসানসোল শাখা।

 গতকাল ১৪ই জুন ছিল ওয়ার্ল্ড ব্লাড ডোনার্স ডে।
মাড়োয়ারি মহিলাদের এই সংগঠন করোনা পরিস্থিতে উদ্ভুত রক্ত সংকটের কথা বিভিন্ন মাধ্যমে জানতে পেরে গতকাল বিকেল ৪ টা নাগাদ বার্নপুর রাধানগর রোডে অবস্থিত আসানসোল সিমেন্টের অফিস চত্বরে একটি ছোট রক্তদান শিবিরের আয়োজন করা হয়। বিকেল ৬ টা পর্যন্ত এই শিবির চলে। মোট ১৬ ইউনিট রক্ত সংগৃহীত হয় এই ন্যানো ব্লাড ক্যাম্পের মাধ্যমে।

এই শিবিরে উপস্থিত ছিলেন আসানসোল ব্লাড ব্যাংকের মেডিক্যাল অফিসার ড: সঞ্জিত চ্যাটার্জী, আসানসোল সিমেন্টের কর্ণধার ব্যবসায়ী, সমাজসেবী পবন গুটগুটিয়া, ভলান্টারি ব্লাল্ড ডোনার্স অর্গানাইজেশন সমন্বয় কমিটি পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমানের তরফ থেকে অসীম সরকার , প্রবীণ সাংবাদিক ও সমাজসেবী মিলন সেনগুপ্ত, কাউন্সিলর উমা শরফ, কাউন্সিলর আশা শর্মা, জীবন সুরক্ষা রক্তদান সংগঠনের সমস্ত সদস্য এবং আরও অনেক গণ্যমান্য ব্যক্তিত্ব।

 
অখিল ভারতীয় মাড়োয়ারি মহিলা সমিতির আসানসোল শাখার প্রেসিডেন্ট শ্রীমতি নির্মলা গুটগুটিয়া বলেন,” রক্তদান মহৎ দান একজন রক্তদান করলে তিনজন মানুষ উপকৃত হতে পারেন।
আসানসোল হাসপাতালের ব্লাডব্যাঙ্কের উপর নির্ভরশীল সরকারি এবং বেসরকারি হাসপাতাল ও নার্সিংহোমের প্রচুর রোগী এবং এর মধ্যে থ্যালাসেমিয়া রোগীর সংখ্যাও অনেক ।  দুর্ঘটনা আর অস্ত্রোপচারজনিত কারণে রক্ত যোগান দরকার। আর তার ওপর বর্তমানে করোনা আতঙ্কের কারণে রক্তের যোগান কমে এসে ঠেকছে। আর ঠিক এই কারণবশত:  ব্লাডক্যাম্পের ভাবনা। “

আসানসোল জেলা হাসপাতালের ব্লাডব্যাঙ্কের মেডিকেল অফিসার সঞ্জিৎ চট্টোপাধ্যায় বলেন, ” করোনা পরিস্থিতিতে মহিলাদের দ্বারা আয়োজিত এই উদ্যোগ এই সংকটের সময় প্রশংসার অপেক্ষা রাখে না।”
 এই ন্যানো ব্লাড ক্যাম্প এ উপস্থিত ছিলেন ওই মহিলা সংগঠনের সহ-সভাপতি শ্রীমতি নিধি পাসারি , সচিব শ্রীমতি শোনাল গাড়িওয়ান, সহ-সচিব বিনাশ খেমানী , কোষাধ্যক্ষ কুমারী কান্তা খেমকা, শ্রীমতি প্রেমাজী খেমানি, প্রাক্তন সভাপতি শ্রীমতি মধুজি দুব্রেওয়াল। তারা প্রত্যেকেই এই সংকটের সময় রক্তদাতাদের রক্তদানের মত মহৎ কাজ করার জন্যে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।