ASANSOL

আসানসোলে বিদ্যুতের আন্ডারগ্রাউন্ড কেবল বসাতে গিয়ে বিপত্তি, ফাটলো মেন পাইপ, দুদিন ধরে জলশূন্য শহরের একাংশ, দুর্ভোগে কয়েক হাজার মানুষ

বেঙ্গল মিরর, আসানসোল, রাজা বন্দোপাধ্যায় ও সৌরদীপ্ত সেনগুপ্তঃ ( Asansol News Today ) আসানসোল শহরের অন্যতম জনবহুল ও ব্যস্ততম রাস্তা হটন রোডে বিদ্যুতের আন্ডারগ্রাউন্ড কেবল বসাতে গিয়ে ঘটলো বড়সড় বিপত্তি। মাটির নিচে ড্রিল মেশিনের ঘায়ে ফাটলো পানীয়জল সরবরাহের মেন পাইপলাইন। শনিবার দুপুরে এই ঘটনাটি ঘটেছে। এরফলে গত দুদিন ধরে আসানসোল শহরের একাংশ কার্যত জলশূন্য হয়ে পড়ে। গরমের মধ্যে জল না পেয়ে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন একাধিক এলাকার কয়েক হাজার মানুষ। রবিবার দুপুর সাড়ে তিনটের পরে নতুন পাইপ এনে ফেটে যাওয়া পাইপ সরিয়ে মেরামতের কাজ শুরু হয়েছে বলে জানা গেছে।
তবে এই ঘটনায় যে বেসরকারি সংস্থা আসানসোল শহরে আন্ডারগ্রাউন্ড কেবল বসানোর বরাত পেয়েছে, তাদের কাজ করার পদ্ধতি নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে।


আরো জানা গেছে, হটন রোডে এই পাইপ ফাটার ঘটনা নতুন নয়। গত দুমাসেরও বেশি সময়ে আসানসোলে ২৫ টিরও বেশি পাইপ ফাটার ঘটনা ঘটেছে। যা নিয়ে একাধিক ওয়ার্ডের কাউন্সিলররা আসানসোল পুরনিগমের জল দপ্তরে অভিযোগও করেছেন। পুর ইঞ্জিনিয়ারদেরও বলা হয়েছে।
   প্রসঙ্গতঃ, আসানসোল শহরে আন্ডারগ্রাউন্ড বিদ্যুতের কেবল বসানোর একটা প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। বেশ কয়েক হাজার টাকা এই প্রকল্পের জন্য ব্যয় করা হবে। ভিন রাজ্যের একটি বেসরকারি সংস্থা এই কাজের বরাত পেয়েছে। ২০২৩ সালের মাঝামাঝি সময় থেকে আসানসোল শহরে এই কাজ শুরু হয়। তারপর থেকেই নানা ধরনের সমস্যা দেখা দিচ্ছে।


সম্প্রতি, কেবল বসানোর জন্য আধুনিক স্বয়ংক্রিয় ড্রিল মেশিন দিয়ে মাটি কেটে ফাইবার পাইপের সঙ্গে নানা সাইজের কেবল বসাতে গিয়ে ঘটছে বিপত্তি। একাধিক জায়গায় ফেটে যাচ্ছে জল সরবরাহ করা পাইপ। কেটে যাচ্ছে আগে থেকে মাটির তলায় থাকা অন্য কেবল ও তার।
দিন কয়েক হলো আসানসোল শহরের ব্যস্ততম ও জনবহুল রাস্তা হটন রোডে এই কাজ শুরু হয়েছে। একাধিক জায়গায় রাস্তার মাটি কেটে গর্ত করা হয়েছে। বড় ধরনের এইসব গর্তের কারণে রাস্তায় যানজট দেখা হচ্ছে।

শনিবার দুপুরে হটন রোডের অচলাবালা মোড় সংলগ্ন এলাকায় ড্রিল মেশিন দিয়ে লোহার রড ঢোকানোর সময় মাটির তলায় জল সরবরাহ করা মেন পাইপ ফেটে যায়। পুরনিগমের জল দপ্তরের কাছে এই ব্যাপারে কোন খবর জানা ছিলোনা। তাই ঐ সময় রিজার্ভার থেকে জল ছাড়া হয়। এই জল ফাটা পাইপ দিয়ে বেরিয়ে গোটা এলাকা ভাসিয়ে দেয়। সঙ্গে সঙ্গে এলাকার বাসিন্দারা আসানসোল পুরনিগমে খবর দিলে, জল বন্ধ করা হয়।
এই প্রসঙ্গে পুরনিগমের এক ইঞ্জিনিয়ার বলেন, বুঝতে পারছি না ঐ সংস্থা কি করে কাজ করছে। মাটির তিন মিটার নিচ দিয়ে তো ড্রিল করার কথা। তারা কি করছে, আমরা জানিনা। গত কয়েক দিনে একাধিক জায়গায় পাইপ ফাটার ঘটনা ঘটেছে। কাউন্সিলাররা আমাদেরকে বলছেন।

আমরা ঐ সংস্থার ইঞ্জিনিয়ারদের ডেকে বলছি। তিনি আরো বলেন, চুক্তি মতো পাইপ ফাটলে, তা সারাই করবে ঐ সংস্থাই। হটন রোডের মেন পাইপ ফেটে যাওয়ায় অনেক এলাকায় গত দুদিন ধরে জল সরবরাহ করা যায়নি। পুরনিগমের তরফে দ্রুত পাইপ সারাই করতে বলা হয়েছে।
কবে জল সরবরাহ স্বাভাবিক হবে, তা নির্দিষ্ট করে বলতে পারেননি পুরনিগমের ঐ ইঞ্জিনিয়ার। পাইপ মেরামতের কথা আমাদেরকে জানালেই আমরা জল সরবরাহ করবো।
জানা গেছে, বেসরকারি সংস্থার তরফে একাধিক ঠিকাদারকে ভাগে ভাগে কাজ করার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
তবে এই কাজের বরাত পাওয়া বেসরকারি সংস্থার তরফে এই ব্যাপারে কেউ কোন মন্তব্য করেননি।

Leave a Reply