ASANSOL-BURNPUR

তৃতীয় দফার লকডাউন শুরুর লগ্নে আসানসোল মিউনিসিপ্যাল করপোরেশনের ৪৪ নং ওয়ার্ডের স্বাতী ফাউন্ডেশনের বাচ্চাদের মধ্যে খাদ্যসামগ্রী ও মাস্ক বিতরন

বেঙ্গল মিরর, আসানসোল, ৪ ই মে, ২০২০, সৌরদীপ্ত সেনগুপ্ত: 
সারা দেশে করোনা পরিস্থিতিতে তৃতীয় দফার লক ডাউন জারী রয়েছে। করোনা আক্রান্তের সংখ্যা রোজ বেড়ে চলেছে। যদিও অনেকেই সুস্থ হয়ে উঠছেন। পশ্চিম বর্ধমান এখনও অরেঞ্জ জোনে রয়েছে। সাধারণ মধ্যবিত্ত বা নিম্ন মধ্যবিত্ত মানুষের সঙ্গে দিন আনা দিন খাওয়া মানুষের রুজি – রুটি প্রায় বন্ধের মুখে ।

এই পরিস্থিতিতে আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া এবং গরীব মানুষ এবং বাচ্চারা যাতে অনাহারে না থাকে, সেজন্য এগিয়ে এলো আসানসোলে এন এস রোডের “স্বাতী ফাউন্ডেশন”। স্বাতী ফাউন্ডেশন গরীব বাচ্চাদের নিয়ে কোচিং ক্লাস চালান।
  আজ স্বাতী ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে সামাজিক দূরত্ব  বজায় রেখে প্রায় ১২৫ জন গরীব বাচ্চাকে মুড়ি, বিস্কুট, চানাচুর, চকোলেট, হাত ধোয়ার জন্যে সাবান এবং মাস্ক বিতরন করা হয়।

  স্বাতী ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্ট এবং আসানসোল মিউনিসিপ্যাল করপোরেশনের ৪৪ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর উমা শরফ বলেন ,” এই খাদ্যসামগ্রী , মাস্ক এবং সাবান  আপাতত এলাকার বাচ্চাদের হাতে তুলে দেওয়া হলেও এরকম আরো খাদ্যসামগ্রী বিতরন করার পরিকল্পনা রয়েছে এলাকার মানুষের উদ্দেশ্য। এরই সঙ্গে তিনি জনগণের উদ্দেশ্যে বার্তা দেন তারা যাতে সোশ্যাল ডিস্টান্সিং বজায় রেখে চলেন এবং বাইরে বেরোলে মাস্ক পড়ে থাকেন। এই তৃতীয় দফার লোক ডাউনে সবাইকে সাবধানতা অবলম্বন করে চলতে হবে।”

  এন এস রোড অঞ্চলের বাচ্চারা যাতে অভুক্ত না থাকে সেই লক্ষ্যে পুলিশের এই উদ্যোগ। খাদ্যদ্রব্য এবং মাস্ক ও সাবান বাচ্চাদের মধ্যে বিতরণ এর সময় এ এম সি ৪৪ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ছাড়াও ছিলেন বিমল জালান, জিতু সিং, মুকেশ ঝা, সুধীর ভার্মা, রিপ্পি ভার্মা , মুকেশ শর্মা প্রমুখ।
স্বাতী ফাউন্ডেশনের পক্ষ  থেকে এই মানবিক উদ্যোগ সমাজের কাছে দৃষ্টান্তস্বরপ।